চাঁদাবাজি মামলায় জয়পুরহাট জেলা পরিষদ সদস্য গ্রেফতার

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

জেলা পরিষদের সদস্য জাহাঙ্গীর আলম

জয়পুরহাট: জয়পুরহাট সন্তাসী-চাঁদাবাজি মামলায় জেলা পরিষদের সদস্য জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সদর উপজেলার ধলাহার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফয়েজ উদ্দীন আহম্মদের বাসায় ভাংচুর, লুটপাট ও তার দুই ছেলেকে মারপিটের অভিযোগ আনা হয় তার বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় ১৪ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৮ থেকে ১০ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। গ্রেফতার জাহাঙ্গীর আলম সদরের রামকৃষ্ণপুর গ্রামের কায়েজ উদ্দীন মন্ডলের ছেলে। তিনি জয়পুরহাট জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক।

মামলা সূত্রে জানা যায়, জাহাঙ্গীর আলম দীর্ঘদিন ধরে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে চেয়ারম্যান ফয়েজ উদ্দীনকে হুমকি দিয়ে আসছিলেন। একপর্যায়ে সোমবার (১১ জুন) রাত ১০টার দিকে জাহাঙ্গীর ও তার ২০-২২ জন সহযোগীকে সঙ্গে নিয়ে চেয়ারম্যানের বাসায় হামলা চালায়। 

এসময় তারা প্রধান গেট এবং সবকটি জানালা ভেঙে বাসায় ঢুকে একটি মোটরসাইকেল ভাংচুরসহ আলমিরাতে রাখা তিন ভরি স্বর্ণ ও নগদ দুই লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

জয়পুরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি, তদন্ত) মমিনুল হক বাংলানিউজকে বলেন, এ ঘটনায় ওই রাতেই ইউপি চেয়ারম্যান ফয়েজ উদ্দীন বাদি হয়ে জাহাঙ্গীর আলমসহ তার সহযোগীদের নামে একটি সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেছেন। 

এ ঘটনায় পুলিশ দুপুরে জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

বাংলাদেশ সময়: ১৬২৪ ঘণ্টা, জুন ১২, ২০১৮
জিপি

মুখোমুখি উরুগুয়ে-সৌদি আরব
‘তারেকের আয়ের উৎস জুয়া’
টার্মিনাল ও সেবক নিবাস নির্মাণে ১৪৬৪ কোটি টাকার প্রকল্প
কমলো স্বর্ণের দাম
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন দপ্তরগুলোর সঙ্গে চুক্তি
তাড়াইলে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় স্কুলছাত্র নিহত
বাজেটকে কল্যাণমুখী করতে হবে: বাদশা
নারীর উন্নয়নে সরকার দৃশ্যমান কাজ করছে
বরিশাল নগরে অভিযানে নামছে নির্বাচন কমিশন
মধুপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত