আদালতে খালেদা

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

আদালতে হাজিরা দিতে যাওয়ার সময় খালেদা জিয়া। ছবি: ডিএইচ বাদল/বাংলানিউজ

ঢাকা: জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট ও জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় হাজিরা দিতে মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) আদালতে উপস্থিত হয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। টানা তিনদিন (মঙ্গল, বুধ ও বৃহস্পতিবার) আদালতে উপস্থিত হয়ে যুক্তিতর্ক উত্থাপনের দিন ধার্য রয়েছে।

মঙ্গলবার (১৬ জানুয়ারি) সকাল ১১টা ৩৭ মিনিটে রাজধানীর বকশীবাজারে কারা অধিদফতরের প্যারেড মাঠে স্থাপিত ঢাকার বিশেষ জজ ড. মো. আখতারুজ্জামানের আদালতে হাজির হন ‍তিনি। 

দুই মামলায়-ই যুক্তিতর্ক উত্থাপনের জন্য দিন ধার্য থাকলেও এখন চলছে জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলার যুক্তিতর্ক। মঙ্গলবার ১০ম দিনের মতো যুক্তিতর্ক উত্থাপন করবেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও খালেদা জিয়ার আইনজীবী  ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ।

খালেদা জিয়ার পক্ষে এর আগে অ্যাডভোকেট আব্দুর রেজ্জাক খান, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, ব্যারিস্টার এজে মোহাম্মদ আলী ও ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার যুক্তি উত্থাপন করেছেন।
দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) দায়ের করা মামলা দু’টির প্রধান আসামি খালেদা জিয়া। 

জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় মোট আসামি চারজন। খালেদা ছাড়া অভিযুক্ত অপর তিন আসামি হলেন- খালেদা জিয়ার তৎকালীন রাজনৈতিক সচিব হারিছ চৌধুরী, হারিছ চৌধুরীর তৎকালীন একান্ত সচিব বর্তমানে বিআইডব্লিউটিএ-এর নৌ-নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক জিয়াউল ইসলাম মুন্না এবং ঢাকা সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার একান্ত সচিব মনিরুল ইসলাম খান।

এ মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন মোট ৩২ জন। জামিনে থাকা অন্য দুই আসামি জিয়াউল ইসলাম মুন্না ও মনিরুল ইসলাম খান আত্মপক্ষ সমর্থন করে আদালতে লিখিত বক্তব্য জমা দিয়েছেন। হারিছ চৌধুরী মামলার শুরু থেকেই পলাতক।

অন্যদিকে অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় খালেদা জিয়াসহ আসামি মোট ছয়জন। অন্য পাঁচ আসামি হলেন- বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান ও খালেদার বড় ছেলে তারেক রহমান, মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

আসামিদের মধ্যে ড. কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান মামলার শুরু থেকেই পলাতক। বাকিরা জামিনে আছেন।

২০১০ সালের ৮ আগস্ট তেজগাঁও থানায় জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলা দায়ের করা হয়। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্টের নামে অবৈধভাবে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা লেনদেনের অভিযোগ এনে মামলাটি করেন দুদক। 

অন্যদিকে ২০০৮ সালের ৩ জুলাই রমনা থানায় জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলা করা হয়। মামলায় এতিমদের সহায়তা করার উদ্দেশ্যে একটি বিদেশি ব্যাংক থেকে আসা ২ কোটি ১০ লাখ ৭১ হাজার ৬৭১ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ আনে দুদক। 

বাংলাদেশ সময়: ১১৩৯ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৬, ২০১৮
এমআই/এমএ 

পল্লবীতে রিজার্ভ ট্যাংক বিস্ফোরণে দগ্ধ ৯
ট্রাক ভর্তি গরু ফেরত যাচ্ছে
ঈদের আমেজ আসামিদের ‘অস্থায়ী আবাসেও’
আনোয়ারায় প্রবাসী সিআইপির বিনামূল্যের চিকিৎসা ক্যাম্প
সাড়ে ১৮ লাখ টাকায় বিক্রি হলো ‘রাজা বাবু’
শেষ দিনে গরুর বাজারে জমজমাট বিকিকিনি
ইচ্ছে থাকলেও হাট ছাড়তে পারছেন না ব্যবসায়ীরা
বি. চৌধুরী ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন ২৩ আগস্ট
তারেকের নীলনকশায় ২১ আগস্ট হামলা: কাদের
বঙ্গবন্ধু সেতুতে টোল আদায় শুরু, চলছে যানবাহন