কাঁঠালবাড়ী ঘাটে যাত্রীদের উপচেপড়া ভিড়

ইমতিয়াজ আহমেদ, ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বাসের ছাদে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন যাত্রীরা

মাদারীপুর: রাত পোহালেই পবিত্র ঈদুল আজহা। শেষ মূহুর্তেও কমেনি ঘরে ফেরার চাপ। পরিবার-পরিজনের সঙ্গে ঈদ করতে হবে এজন্য জীবন বাজি রেখে নানা দুর্ভোগ মাথায় নিয়ে ঘরের উদ্দেশে ছুটছে মানুষ। 

মঙ্গলবার (২১ আগস্ট) সকাল থেকে দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম নৌরুট শিবচরের কাঁঠালবাড়ী ঘাটে দেখা গেছে ঘরমুখো মানুষের ঢল। 

সরেজমিনে দেখা যায়, লঞ্চ-স্পিডবোটে অতিরিক্ত বোঝাই হয়ে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে এসে নামছে দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীরা। রয়েছে দূরপাল্লার পরিবহনেও যাত্রীদের ভিড়। যাত্রী তুলনায় পরিবহন কম থাকায় অপেক্ষায় থাকতে হচ্ছে দূরপাল্লার যাত্রীদের। গাড়ির টিকেটের জন্য দীর্ঘ লাইনেও দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

এদিকে, মহাসড়ক থেকে কাঁঠালবাড়ী ঘাটে প্রবেশপথে সকাল থেকেই লেগে রয়েছে দীর্ঘ যানজট। যাত্রীশূন্য পরিবহনগুলো টার্মিনালে প্রবেশ করতে সময় লাগায় সৃষ্টি হয়েছে যানজট। একই সড়ক দিয়ে একসাথে বাস, মাইক্রোবাস ও থ্রি-হুইলার গাড়িগুলো ঘাটে প্রবেশ করছে বিধায় যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। 

বিআইডব্লিউটিসি’র কাঁঠালবাড়ী ঘাট সূত্র জানায়, সকাল থেকেই কাঁঠালবাড়ী ঘাটে যাত্রীদের উপচে পড়া ভিড় রয়েছে। যাত্রীদের চাপ মোকাবিলায় রয়েছে ৮৬টি লঞ্চ, দুই শতাধিক স্পিডবোট ও ১৭টি ফেরি। নাব্যতা সংকট নিরসন হওয়ায় ফেরিগুলো চলাচল করছে। তবে পরিবহনের মাত্রাতিরিক্ত চাপ নেই।

লঞ্চে পার হয়ে আসা যাত্রীরা বাংলানিউজকে জানান, শিমুলিয়া থেকে প্রয়োজনের তুলনায় অধিকযাত্রী উঠানো হচ্ছে লঞ্চে। লঞ্চ কর্তৃপক্ষের চাহিদা পূরণ না হওয়া পর্যন্ত তারা লঞ্চ ছাড়ছে না। মাঝ পদ্মায় অনেক স্রোত ও ঢেউ রয়েছে। অধিক যাত্রী বহনে দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে।

ঘাটের একাধিক সূত্র জানায়, লঞ্চ-স্পিডবোটে অতিরিক্ত যাত্রী উঠানোর পাশাপাশি আদায় হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়াও। এছাড়া পরিবহনে ঈদ মৌসুমে মাত্রাতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়টি বেশ পুরোনো। কাছাকাছি যারা যাবেন তাদের দুর্ভোগ সবচেয়ে বেশি বলে জানা গেছে। লোকাল পরিবহনগুলো ঈদ মৌসুমে আর লোকাল থাকছে না। তারাও অধিক মুনাফার লোভে দূরপাল্লার যাত্রীদের উঠাচ্ছে। আর এই সুযোগে ছোট গাড়িগুলো আদায় করছে ইচ্ছে মতো ভাড়া। ১০ টাকার ভাড়া বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১০০ টাকা! বাড়তি ভাড়া নিয়ে প্রশ্ন তুললেই যেতে চাচ্ছে না গাড়িগুলো। ফলে স্বল্প দূরুত্বে যাতায়াতকারী সাধারণ যাত্রীরা পড়েছে চরম বিপাকে।

কাঁঠালবাড়ী ঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর উত্তম কুমার শর্মা বাংলানিউজকে জানান, ঈদে যাত্রীদের চাপ বেশি থাকে এটাই স্বাভাবিক। তবে ঘাট এলাকায় যানজট সৃষ্টি হয়ে যাতে ভোগান্তি না হয় সেদিকে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বিশেষ করে পন্যবাহী পরিবহনগুলো সড়কের ওপর রাখার কোনো সুযোগ নেই। বাসগুলোও টার্মিনালের মধ্যে রাখা হয়।

শিবচর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জাকির হোসেন বলেন, কাঁঠালবাড়ী ঘাটে যাত্রীদের নির্বিঘ্নে যাত্রা নিশ্চিত করতে তিন শতাধিক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য রয়েছে। রয়েছে ভ্রাম্যমাণ আদালতের একাধিক টিমও। এছাড়াও লঞ্চ ঘাটে লঞ্চ থেকে যাত্রীদের নামতে সার্বক্ষণিক সহযোগিতা করে যাচ্ছে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। রয়েছে স্বেচ্ছাসেবকদের টিমও।

বাংলাদেশ সময়: ১১১৪ ঘণ্টা, আগস্ট ২১, ২০১৮
এনটি

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: মাদারীপুর ঈদুল আজহা
বাল্যবিবাহ বন্ধে সার্বজনীন আইনের পরিকল্পনা
জ্বালাও-পোড়াও মামলার বিচার শিগগিরই
সম্ভাবনা ও উন্নয়ন নিয়ে জনপ্রতিনিধিরা যা বললেন
কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা 
আল্লাহর প্রিয় দুটি বাক্য
জামালপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় চালকের মৃত্যু  
ডিবি কর্মকর্তার পিস্তল চুরি: চারজনের রিমান্ড আবেদন 
উলিপুরে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ২ জনের মৃত্যু
এবি ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যানসহ ১২ জনকে দুদকে তলব
অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থেই নির্বাচনে আসবে বিএনপি