জাতীয় পুরস্কার পাচ্ছেন ‘গাছের পাঠশালা’ ইয়ারব

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

‘গাছের পাঠশালা’ পরিচালক ইয়ারব হোসেন

সাতক্ষীরা: বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার-২০১৭ পাচ্ছেন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার তুজুলপুরের ‘গাছের পাঠশালা’ পরিচালক ইয়ারব হোসেন।
 

বৃক্ষ গবেষণা, সংরক্ষণ ও উদ্ভাবন ক্যাটাগরিতে গাছের পাঠশালার পরিচালক ইয়ারব হোসেন দ্বিতীয় স্থান নিয়ে এই পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন। আগামী ১৮ জুলাই বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্তদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়ার কথা রয়েছে। 
 
বৃহস্পতিবার (১২ জুলাই) তুজুলপুরের গাছের পাঠশালার পরিচালক ইয়ারব হোসেন বাংলানিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘মাঝে মাঝে মনে হতো প্রকৃতি থেকে অনেক গাছ হারিয়ে যাচ্ছে। এগুলো সংরক্ষণ করা দরকার। এছাড়া বর্তমান প্রজন্মের ছেলে-মেয়েরাও অধিকাংশ গাছ চেনে না। জানে না এসবের উপকারিতা সম্পর্কেও। তাই বছর দুয়েক আগে উদ্যোগটি নিয়েছিলেন তিনি। এই চিন্তা-চেতনাকে বাস্তবে রূপ দিতে পাশে এসে দাঁড়িয়েছিলো গবেষণা প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ রিসোর্স সেন্টার ফর ইন্ডিজেনাস নলেজের (বারসিক)।’

বারসিক প্রথম থেকেই কারিগরি সাপোর্ট দিয়ে যাচ্ছে উল্লখ করে তিনি বলেন, ‘গাছের পাঠশালায় বিলুপ্ত প্রায় বিভিন্ন প্রজাতির গাছ সংরক্ষণ করা হয়। যা আজ আমার এই সাফল্য এনে দিয়েছে। এটা আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন।’ 

ইয়ারব হোসেন তার লিজ নেওয়া ১৮ কাঠা জমিতে গড়ে তুলেছেন গাছের পাঠশালা। গাছের পাঠশালায় ছোট ছোট বোর্ডে লেখা রয়েছে প্রত্যেক গাছের নামসহ গুণাগুণ। বিনামূল্যে বিতরণের জন্য পাঠশালার এক পাশে উৎপাদন করা হয় বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ বৃক্ষ। সুন্দরবনের বৃক্ষ পরিচিতির জন্য রয়েছে সুন্দরবন কর্নার। এছাড়া গোটা পাঠশালাকে বিলুপ্ত প্রায় ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছের সংরক্ষণাগার বললেও ভুল হবে না।

স্থানীয়রাসহ প্রতিদিন গাছের পাঠশালায় ঘুরতে আসেন দূর-দূরান্তের মানুষরা। যেন এক খণ্ড বিনোদন কেন্দ্র। একই সঙ্গে এই গাছের পাঠশালার থেকে নিয়ে যান প্রয়োজনীয় গাছ। যারা শুধুই বেড়াতে আসেন তাদের উপহার হিসেবে দেওয়া হয় ফলজ বৃক্ষের চারা।

পাঁচ শতাধিক ঔষধি, ফলজ ও বনজ বৃক্ষের সমাহারে দীপ্তি ছড়াচ্ছে গাছের পাঠশালা। একই সঙ্গে এই পাঠশালায় কেঁচো কম্পোস্ট ও বিভিন্ন প্রকার জৈবসার তৈরি, ফেরোমোন ফাঁদের বাস্তব ব্যবহারের প্রদর্শনীও রয়েছে। এক দল মানুষ সেখানে রয়েছেন। যাদের বিভিন্ন গাছ ও তার গুণাগুণ সম্পর্কে ধারণা দেন ইয়ারব হোসেন।

এদিকে ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, উপজেলা পরিষদ, সিটি করপোরেশন ক্যাটাগরিতে সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলা পরিষদ তৃতীয় স্থান নিয়ে বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছে।

দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) হাফিজ-আল-আসাদ বাংলানিউজকে বলেন, বাংলাদেশ সরকারের পরিবেশ, বন ও জলাবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের বন শাখা-২ ‘বৃক্ষরোপণে প্রধানমন্ত্রীয় জাতীয় পুরস্কার প্রদানের জন্য নয়টি শ্রেণীতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিকে চূড়ান্তভাবে মনোনীত করে। এর মধ্যে দেবহাটা উপজেলা পরিষদ তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে। 

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৫ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০১৮
জিপি

দাউদকান্দিতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদক ব্যবসায়ী নিহত
লালমনিরহাটে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় ধর্ষক গ্রেফতার
‘বুলেটের চেয়েও শক্তিশালী ব্যালট’
ছুরিকাঘাতে প্রাণ গেলো অলিম্পিক পদকজয়ী ফিগার স্কেটারের
গোবিন্দগঞ্জে মাধ্যমিকের বই জব্দের ঘটনায় আটক ১
৩ ভাইয়ের প্রচেষ্টায় ৪ ঘণ্টায় ১ ইলিশ!
এখন সংগ্রাম জাতি হিসেবে গৌরব অর্জনের
কক্সবাজার লিংক রোডে ইসলামী ব্যাংকের ৩৩৭তম শাখা
রবীন্দ্রকথন ‘বাংলার মাটি বাংলার জল’
দু’হাত হারানো সিয়াম পেলো জিপিএ-৪