স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ বাংলাদেশের জন্য বড় প্রাপ্তি

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কার্পেট বিতরণ করছেন মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি। ছবি: বাংলানিউজ

গোপালগঞ্জ: আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান এমপি বলেছেন, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১-এর উৎক্ষেপণই প্রমাণ করে বাংলাদেশ আজ উন্নত বিশ্বের রোল মডেল। এ স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের মধ্য দিয়ে আমরা মহাকাশ জয় করলাম। এটাই বাংলাদেশের জন্য বড়-প্রাপ্তি।

শনিবার (১২ মে) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলা অডিটোরিয়ামে বিভিন্ন মসজিদ, মন্দিরে কার্পেট বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

ফারুক খান বলেন, আমাদের আর বিদেশি স্যাটেলাইট ভাড়া করতে হবে না। এখন থেকে আমরা নিজেদের স্যাটেলাইট ব্যবহার করতে পারব। ঘরে বসে আমাদের ছেলে-মেয়েরা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের লাইব্রেরির বই পড়তে পারবে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর সময়সীমা ১৫ বছর। এটি তৈরি করতে যে টাকা খরচ হয়েছে তা উঠে আসতে ৭/৮ বছর সময় লাগবে।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে ফারুক খান বলেন, বিএনপি বলেছিলো এতো টাকা দিয়ে এই স্যাটেলাইট কেনার কোন প্রয়োজন মনে করিনা। বিএনপি-জামায়াত জোট যদি বাংলাদেশের ভালো চাইতো তাহলে ১৯৯৩ সালে ফ্রি সাবমেরিন ক্যাবল ফেরত দিত না। তাদের ফেরত দেওয়ার ফলে আমাদের এই সাবমেরিন ক্যাবল টাকা দিয়ে কিনতে হয়েছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মুকসুদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাসলিমা আলী।
এসময় বক্তব্য রাখেন-উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আশরাফুল আলম শিমুল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট আতিকুর রহমান মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম শিকদার, মুকসুদপুর উপজেলা সহকারী কমিশনার ভ‍ূমি আক্তার হোসেন শাহীন, মুকসুদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক হায়দার হোসেন প্রমুখ।

ত্রাণ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে প্রায় ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ৮৩টি মসজিদ এবং ১৯টি মন্দিরে কার্পেট বিতরণ করা হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৯ ঘণ্টা, মে ১২, ২০১৮
আরএ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট
ইনিয়েস্তার বিকল্প কুতিনহো!
জমজ নবজাতকের একটি ‘নিখোঁজ’ পিপলস হাসপাতালে
নাজিমের ঘাতক বাসের চালক ও হেলপার রিমান্ডে
বাগেরহাটে ৬৪ দরিদ্র পরিবারের মাঝে ঢেউটিন
রেডিসনে ব্যুফে ইফতারে ১টি অর্ডারে ৩টি ফ্রি!
মাদকবিরোধী অভিযানে সিরাজগঞ্জে গ্রেফতার ২০
বদির বিরুদ্ধে তথ্য আছে, তবে আরও প্রমাণ দরকার
হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে অভিনেত্রী তাজিন
বিশ্বকাপ ঘিরেই গ্যারির যত পরিকল্পনা
মিয়ানমার সফরে যাচ্ছেন জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূত