পাবনায় দুই বাংলার সাহিত্যিকদের মিলনমেলা

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

দুই বাংলার সাহ্যিতকদের মিলনমেলা পাবনার চর গড়গড়ি গ্রাম

পাবনা: পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার চর গড়গড়ি গ্রামে চার দিনব্যাপী শুরু হয়েছে বৈশাখী উৎসব ও বাংলা সাহিত্য সম্মেলন। দুই বাংলার শতাধিক কবি সাহিত্যিকদের অংশগ্রহণে মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে চরনিকেতন কাব্যমঞ্চ।

উৎসবে বাংলাদেশের অর্ধশত এবং ভারতের প্রায় ২৫ জন কবি সাহিত্যিকদের প্রাণবন্ত আড্ডায় উৎসব মুখর হয়ে উঠেছে সম্মেলন প্রাঙ্গণ।

শনিবার (১৪ এপ্রিল) বাংলা একাডেমী ও একুশে পদকপ্রাপ্ত কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা, কথা সাহিত্যিক আলী ইমাম, কবি দীপক লাহিড়ী ও কবি দেবাঞ্চন চক্রবর্তী এ উৎসবের উদ্বোধন করেন। এ উৎসব শেষ হবে মঙ্গলবার (১৭ এপ্রিল)।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ওসাকার তত্ত্বাবধানে চরনিকেতন কাব্যমঞ্চের আয়োজনে চার দিনব্যাপি বৈশাখী উৎসব ও বাংলা সাহিত্য সম্মেলনে থাকছে নানা অনুষ্ঠান।

চার দিনব্যাপী বৈশাখী উৎসব আর সাহিত্য সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন- ভারতের কবি জহর সেন, দীপক লাহিড়ী, চিত্রা লাহিড়ী, গৌতম চৌধুরী, দেবাঞ্জন চক্রবর্তী, শুক্লা চক্রবর্তী, অধীর কৃষ্ণ মণ্ডল, পার্থ সারথী গায়েন, নীলাঞ্জন চক্রবর্তী, প্রবীর ভৌমিক, নৃপেন চক্রবর্তী, সুব্রত গঙ্গোপাধ্যায়, মানসী কীর্তনিয়া, কাজল চক্রবর্তী, তাপস রায়, স্বস্তিকা চক্রবর্তী, দেব চক্রবর্তী, অমিত কুমার চক্রবর্তী, গারগী সেনগুপ্ত, পিয়ালী দাস, অমল সরকার, পিন্টু কুমার মাইতি, দেবারতি ভট্টাচার্য, সম্পা দাস, সোমনাথ দাস, নবনীতা বসু হক, মৈথলী, সাকনি ঘোষ, জৌতিময় দাস, স্বরুপ মণ্ডল, সৈকত নায়ক, সমরেশ মণ্ডল ও সুভাষ এম পরাজুলি এবং বাংলাদেশের একুশে ও বাংলা একাডেমী পুরষ্কারপ্রাপ্ত জাতি সত্বার কবি নুরুল হুদা এবং কবি গবেষক মজিদ মাহমুদসহ বাংলাদেশের অর্ধশত কবি সাহিত্যিক।

সাহিত্য সম্মেলনে অংশ নেওয়া কলকাতার মদ্যগ্রাম থেকে আসা কবি গল্পকার গারগী সেনগুপ্তর বাংলানিউজকে বলেন, এবারই আমার প্রথম বাংলাদেশে আসা। এতো সুন্দর প্রকৃতির মাঝে অসম্ভব সুন্দর লাগছে। এই বাংলাকে আমার কখনো আলাদা মনে হয়নি। এই দেশে আমার মায়ের জন্ম। ওপার বাংলা আর এপার বাংলা এক আমার কাছে সমান।

কলকাতা থেকে আসা অধ্যাপক দেবাঞ্জন চক্রবর্তীর বলেন, দেশ এবং দেশের বাহিরে সাহিত্য সম্মেলনে যাওয়ার সুযোগ হয়েছে অনেকবার। তবে এবার প্রথম বাংলাদেশের প্রত্যন্ত গ্রামঞ্চলে সাহিত্য সম্মেলনে আসা। আমাদের দুই দেশের মধ্যে দীর্ঘদিনের যে সাংস্কৃতিক লেনদেন এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে আরো মজবুত হবে।

বৈশাখী উৎসব ও সাহিত্য সম্মেলনের উদ্যোক্তা কবি, গবেষক ও পরিচালক চর নিকেতন কাব্যমঞ্চ মজিদ মাহমুদ বাংলানিউজকে বলেন, দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে আমি চেষ্টা করেছি আমার গ্রাম বাংলাকে তুলে ধরার জন্য। বাংলা সাহ্যিত্যের প্রতি ভালোবাসা আর দেশের মানুষের জন্য কিছু করা প্রত্যয় নিয়ে আমি পথ চলছি। 

এদিকে সম্মেলনস্থলে ৩০টি স্টল বসেছে। আগত ওপার বাংলা আর এপার বাংলার কবি সাহ্যিকদের প্রকাশিত বই, আর হাতে বোনা কাপড় স্থান পেয়েছে এই স্টলগুলোতে। এই আয়োজনে প্রতিদিনই সকাল থেকে অনুষ্ঠান শুরু হয়ে চলছে সন্ধ্যা পর্যন্ত। ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া এই সম্মেলন চলবে ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত। প্রতিদিন সকাল ৯টা থেকে অনুষ্ঠান শুরু হয়ে চলছে সন্ধ্যা পর্যন্ত।

বাংলাদেশ সময়: ১৭৫২ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৬, ২০১৮
এনটি

প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কারপ্রাপ্ত ফজলে করিমকে সম্মাননা
ঢামেকে হত্যা মামলার হাজতির মৃত্যু
একসঙ্গে ৬ মৃত সন্তান প্রসব মৌসুমীর
পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ
সাতকানিয়ায় শিবিরের সভাপতি গ্রেফতার
বিশ্বকাপ ব্যর্থতার কারণ খুঁজছে আফ্রিকান দলগুলো
‘মোহমায়া'য় শ্যামলের সঙ্গে উর্মিলা
৪১ হাজার ইয়াবাসহ মাদক পাচারকারী গ্রেফতার
চকরিয়ায় দু’গ্রুপের গুলিবিনিময়, যুবক নিহত
রাজৈরে কুমার নদ ‌থে‌কে যুবকের মরদেহ উদ্ধার