আগুন পোহাতে গিয়ে ১৪ দিনে ১৯ প্রাণহানি

বেরোবি করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

রমেক হাসপাতালে ভর্তি দগ্ধ রোগীরা। ছবি: বাংলানিউজ

রংপুর: আগুন তাপিয়ে শীতের তীব্রতা থেকে রক্ষা পাওয়ার চেষ্টায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো চারজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ১৪ দিনে রমেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দগ্ধ ১৯ নারী প্রাণ হারালেন।

শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) রমেক হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সহকারী পরিচালক নূরে-আলম বাংলানিউজকে বলেন, চলমান শৈত্যপ্রবাহ ও শীতে আগুন পোহাতে গিয়ে ৬ জানুয়ারি (শনিবার) থেকে রংপুর অঞ্চলের বিভিন্ন এলাকার অর্ধশতাধিকেরও বেশি নারী অগ্নিদগ্ধ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন। দগ্ধদের শরীরে ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ পুড়ে গেছে। এর মধ্যে শুক্রবার পর্যন্ত ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের বেশির ভাগই নারী, বৃদ্ধ ও শিশু। 

তিনি বলেন, চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার আরো চারজনের মৃত্যু হয়েছে। তারা হলেন-দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার সুভাষ চন্দ্রের স্ত্রী গীতা রানী (২৫), লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার মিজানুর রহমানের স্ত্রী রুমকি (২৭), নীলফামারী সদরের মৃত তমিজ উদ্দীনের স্ত্রী আফরোজা (৭৫) এবং দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের মৃত খোদা বকসের ছেলে মকবুল (৬২) মারা যান।

এর আগে, লালমনিরহাট সদর থানার শাম্মি আখতার (২৭), একই জেলার পাটগ্রামের ফাতেমা বেগম (৩২) ও আলো বেগম (২২), রংপুরের কাউনিয়ার গোলাপি বেগম (৩০), নীলফামারীর রেহেনা বেগম (২৫), রংপুর নগরীর নজিবেরহাট এলাকার বেলাল হোসেনের স্ত্রী আফরোজা খাতুন (৪০), ঠাকুরগাঁও শহরের থানাপাড়ার আঁখি আক্তার (৪৫), রংপুরের জুম্মাপাড়া পাকার মাথার রুমা খাতুন (৬৫), রংপুরের মাহিগঞ্জের চাঁন মিয়ার স্ত্রী মনি বেগম (২৫), নীলফামারী সদরের সোনারাম গ্রামের আমজাদ হোসেনের স্ত্রী মারুফা খাতুন (৩০), লালমনিরহাট জেলার রাজপুর গ্রামের শুকমনি (৭০), রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার জামেরন বেওয়া (৮০) ও রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার হাসু বেগম (৬৫), কুড়িগ্রামের নুরিজা (৩০) ও পঞ্চগড়ের আরজিনা (২৮)।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৪৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৯, ২০১৮
ওএইচ/

কিশোরগঞ্জে ৩৪০০ পিস ইয়াবাসহ আটক ১
নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপিকে ‘চাপে’ রাখবে সরকার 
ধর্ষকের ভয়ে শরীরে আগুন ধরিয়ে কিশোরীর আত্মহত্যার চেষ্টা
অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের জন্ম
কর্কটের ব্যবসায় উন্নতি, মকরের শত্রুর আবির্ভাব
তেঁতুলিয়ায় ট্রাকের ধাক্কায় সাবেক চেয়ারম্যানসহ নিহত ২
‘শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে’
কাকরাইলে শিশুর মৃত্যু, পরিবার জানে না কারণ!
বসুন্ধরা গ্রুপ সবসময় ভালো কাজের সঙ্গে আছে: মাশরাফি
শিশুপার্কে গিয়ে ফিরলো আফসানার নিথর দেহ




Alexa