অরফানেজে আপিল শুনানিতে ‘প্রস্তুত’ দুদক

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ফটো

ঢাকা: জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আপিল শুনানিতে প্রস্তুত রয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সোমবার (১৮ জুন) এমন তথ্য জানিয়েছেন এই মামলার কমিশনের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। তার মতে, ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে এ আপিল নিষ্পত্তি করতে উচ্চতর আদালতের আদেশ রয়েছে। তাই সুপ্রিম কোর্টের অবকাশ শেষে আপিল শুনানির জন্য তিনি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে আপিলটি মেনশন করবেন।

এ মামলায় খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া চার মাসের জামিন বহাল রেখে আপিল বিভাগ ১৬ মে রায় দেন। রায়ে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে পাঁচ বছরের দণ্ডের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে করা খালেদা জিয়ার আপিল নিষ্পত্তি করতে বলেছেন।

খুরশীদ আলম খান বলেন, ইতোমধ্যে আপিল বিভাগের রায় বের হয়েছে। এখন হাইকোর্ট বিভাগে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে আপিল মামলাটি নিষ্পত্তির বাধ্যবাধকতা রয়েছে। বর্তমানে উচ্চ আদালতে অবকাশ চলছে। অবকাশ শেষে খোলার শুরুতে আপিলটি শুনানির জন্য হাইকোর্ট বিভাগে যাবো। কারণ এ মামলার পেপারবুকও (আপিল শুনানির জন্য প্রয়োজনীয় নথি) প্রস্তুত রয়েছে। সেটি আমরা রিসিভও করেছি।

তিনি আরো বলেন, শুধু খালেদা জিয়ার আপিলই নয়, অপর দণ্ডপ্রাপ্ত দুই আসামির আপিল এবং খালেদা জিয়া সাজা বৃদ্ধিতে দুদকের করা আবেদনে জারিকৃত রুলের ওপর শুনানি একসঙ্গে হবে।

গত ১৬ মে খালেদাকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বাতিলে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদকের করা আপিল খারিজ করে দিয়ে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ রায় দেন।
 

এছাড়া নিম্ন আদালতের দেওয়া পাঁচ বছরের সাজার বিরুদ্ধে খালেদা জিয়া যে আপিল করেছেন সে আপিল বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে ৩১ জুলাইয়ের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে নির্দেশ দেওয়া হয়।  

গত ৮ ফেব্রুয়ারি মামলাটিতে খালেদা জিয়ার পাঁচ বছর কারাদণ্ড হয়। একইসঙ্গে খালেদাপুত্র ও বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ অপর পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে দণ্ড দেওয়া হয়।

রায় ঘোষণার ১১ দিন পর ১৯ ফেব্রুয়ারি বিকেলে রায়ের সার্টিফায়েড কপি বা অনুলিপি হাতে পান খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা। এরপর হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় ২০ ফেব্রুয়ারি এ আবেদন দায়ের করেন।
 
১২ মার্চ খালেদা জিয়াকে চার মাসের জামিন দেন হাইকোর্ট। হাইকোর্টের দেওয়া ওই জামিন স্থগিত চেয়ে পরদিন ১৩ মার্চ আপিল বিভাগে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদক।

পরে আপিল বিভাগের চেম্বার আদালত এ দুই আবেদনের শুনানির জন্য ১৪ মার্চ দিন ধার্য করেন। এরপর ১৪ মার্চ আপিল বিভাগ রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদককে জামিনের বিরুদ্ধে লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে) দায়ের করতে বলে চার মাসের জামিন ১৮ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত করেন। এ আদেশ অনুসারে পরের দিন ১৫ মার্চ রাষ্ট্রপক্ষ ও দুদক লিভ টু আপিল দায়ের করেন।
 
এ লিভ টু আপিলের ওপর শুনানি হয় ১৮ মার্চ। শুনানি শেষে আবেদনের ওপর আদেশের জন্য ১৯ মার্চ দিন ধার্য করেন আপিল বিভাগ। পরে ১৯ মার্চ আদালত লিভ টু আপিল মঞ্জুর করেন। একইসঙ্গে আপিল শুনানির জন্য ৮ মে দিন ধার্য করেন। তারপর আপিল শুনানি শেষে ১৬ মে রায় দেন উচ্চতর আদালত।

এর মধ্যে দুদক খালেদা জিয়ার সাজা বৃদ্ধিতে আবেদন করলে হাইকোর্ট রুল জারি করেন। এছাড়া ১০ বছরের দণ্ডপ্রাপ্ত মাগুরার সাবেক এমপি কাজী সালিমুল হক কামাল এবং ব্যবসায়ী শরফুদ্দিনও হাইকোর্টে আপিল করেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩৫ ঘণ্টা, জুন ১৮, ২০১৮
ইএস/আরবি/

নির্বাচনী কার্যালয়ে সিসি ক্যামেরা, প্রার্থীকে জরিমানা
ইয়াবাসহ ভুয়া সাংবাদিক গ্রেফতার
মওদুদের এক মামলায় আদালত বদলির নির্দেশ
বিশ্ব ঋণ ১৬৪ ট্রিলিয়ন ডলার: পরিকল্পনা মন্ত্রী
কলমাকান্দায় ফার্মেসিসহ ৩ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
বিসিসি নির্বাচনে গণসংযোগে ব্যস্ত মেয়রপ্রার্থীরা
মুরগি খাওয়ার অপরাধে অজগর পেটালেন গৃহকর্তা
সৈয়দপুরে ইউএনও’র মোবাইল নম্বর ক্লোন, টাকা দাবির অভিযোগ
এরশাদের সঙ্গে শ্রিংলার বৈঠক
জলাবদ্ধতা ইস্যুতে সিডিএর পরিকল্পনা জানতে চেয়েছে চসিক