জিলকদ মাসের আমল

ইসলাম ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ইবাদত/প্রতীকী ছবি

ঢাকা: আরবি মাসগুলোর মধ্যে অন্যতম শাওয়াল মাস প্রায় শেষ। এরপর আসবে হিজরি ক্যালেন্ডারের এগারোতম মাস জিলকদ। এ মাসও খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা ঈদ-উল-ফিতর ও ঈদ উল আজহার মধ্যে জিলকদ মাসের অবস্থান।

জিলকদ শব্দের অর্থ স্থির হওয়া বা বিশ্রাম নেওয়া। জিলকদ মাসকে বিশ্রামের মাস বলা হয়, কেননা এ মাসের আগের চার মাস ও পরের দুই মাস ইবাদতে ব্যস্ত থাকতে হয়। এ কারণে জিলকদ মাসে মুসল্লিরা বিশ্রামের সুযোগ পায়। জিলকদের মাসেরও বেশ কিছু আমল রয়েছে।

বাংলানিউজের পাঠকদের জন্য জিলকদ মাসের আমল সম্পর্কে নিচে আলোচনা করা হলো-

জিলকদ মাসের পর জিলহজ মাস। তাই এ মাসে হজ ও কোরবানির প্রস্তুতি নেয়া ভালো। এছাড়াও জিলহজ ও মহররম মাসের প্রস্তুতি হিসেবে নফল রোজা করা। এ মাসের ১, ১০, ২০, ২৯ ও ৩০ তারিখে নফল রোজা পালন করা। জিলকদ মাসে সুন্নত রোজাও পালন করা। এ মাসের ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখে (আদি পিতা প্রথম নবী হজরত বাবা আদম আ.) আইয়ামে বিদের সুন্নত রোজা রাখা। প্রত্যেক শুক্রবার নফল রোজা পালন করা। এছাড়াও প্রতি সপ্তাহের সোম ও বৃহস্পতিবার সুন্নতে নববি রোজা রাখা।

প্রতিদিন বেশি বেশি কোরআন তেলওয়াত করা খুবই ভালো। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের পাশাপাশি বেশি বেশি নফল নামাজ (তাহাজ্জুদ, ইশরাক, চাশত বা দুহা, জাওয়াল ও আউওয়াবিন) আদায় করা।

বাংলাদেশ সময়: ১৬১২ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০১৮
এএইচ/এসএইচ

ক্লিক করুন, আরো পড়ুন: ইবাদত
আয়ারল্যান্ডকে হারিয়ে বাংলাদেশের সিরিজ জয়
শাহজালালে ৬ স্বর্ণেরবারসহ যাত্রী আটক
ছাগলনাইয়ায় মহিষের দখলে পশুরহাট
মৌলভীবাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত
সিলেটে চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা লক্ষাধিক পিস
শনিবার থেকে লঞ্চের স্পেশাল সার্ভিস
নাট্যকার সেলিম আল দীনের জন্ম
কোটার বিষয়ে অ্যাটর্নি জেনারেলের মত চেয়েছে সরকার
কেরালায় বন্যায় ৩২৪ জনের মৃত্যু, আশ্রয় শিবিরে সোয়া ২ লাখ
ডিমলায় জামায়াতের শীর্ষ ৪ নেতা আটক