‘দাওয়াত রইলো আমাদের দেশে, ভদ্রতা শিখে নিও!’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মালয়েশিয়ায় কনসার্ট ও শো করতে গিয়ে ইমিগ্রেশনে হেনস্থার শিকার কণ্ঠশিল্পী এইচ এম রানা ও সতীর্থ শিল্পীরা (ছবি: সংগৃহীত)

ঢাকা: ‘এখন মালয়েশিয়ার টাইম কয়টা জানেন? দুপুর ২টা….. সন্ধ্যা ৬টায় আমাদের লাইভ কনসার্ট… ঘুম নাই, খাওয়া নাই। ইতিহাস হয়ে থাকবে আমাদের এ ট্যুর…. ১৪ ঘণ্টা পর আমরা মালয়েশিয়ায় আলোর মুখ দেখলাম।’

 

মালয়েশিয়ান ইমিগ্রেশনের তিক্ত অভিজ্ঞতা থেকে ইমিগ্রেশন পুলিশের প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে এভাবেই ক্ষোভ ঝাড়েন বাংলাদেশি তারকা কন্ঠশিল্পী এইচ এম রানা।

স্থানীয় সময় শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) সকাল ১১টা ২৩ মিনিটে ওই স্ট্যাটাসটি দেন রানা। স্ট্যাটাসে তিনি আরো লেখেন, ‘…ভদ্রতা শিখে নিও হে মালয়েশিয়ান পুলিশ! দাওয়াত রইলো আমাদের দেশে…. এসে দেখে ও শিখে নিও তোমরা আমাদের দেশে এলে আমরা তোমাদের কতটা সম্মান দিই…আদর দিই’
….১৩ বারের মতো এদেশে এসে এমন অপমান ছি! ছি! ছি!…’

‘বাংলাদেশি নাইট কনসার্টে’ অংশ নিতে শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) মালয়েশিয়া যান এই কন্ঠশিল্পী সহ বাংলাদেশি কয়েকজন তারকা অভিনেতা। সেখানে ইমিগ্রেশনে মালয়েশিয়ান পুলিশ তাদের চরম হেনস্তা করে। আর তাতেই এমন অসন্তোষ প্রকাশ করে ফেসবুকে এই পোস্টটি দেন এইচ এম রানা।

মালয়েশিয়ায় কনসার্ট ও শো করতে গিয়ে ইমিগ্রেশনে হেনস্থার শিকার কণ্ঠশিল্পী এইচ এম রানা ও সতীর্থ শিল্পীরা (ছবি: সংগৃহীত)ওই কনসার্টে অংশ নেয়া দলের অন্যরা হলেন জনপ্রিয় চলচ্চিত্র নির্মাতা ও উপস্থাপক দেবাশিস বিশ্বাস, অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা, আনিকা কবির শখ, আইরিন সুলতানা, অভিনেতা নীরব হোসেন, মামনুন হাসান ইমন, কণ্ঠশিল্পী আঁখি আলমগীরসহ আরও অনেকেই।

এদিকে জনপ্রিয় এই তারকাদের সাথে মালয়েশিয়ান পুলিশের এমন ব্যবহারের পর সমালোচনার ঝড় উঠেছে ফেসবুকে। ওই স্ট্যাটাসে কমেন্টের মাধ্যমে রানার এই প্রতিবাদের প্রশংসা করছেন অনেকেই। তবে কেউ কেউ আবার এজন্য বাংলাদেশি হাইকমিশন ও কিছু  দালালকেও দুষছেন।

মোহাম্মদ রেজাউল করিম নামের এক প্রবাসী বাংলাদেশি কমেন্টে লেখেন, ‘ভাই বলার ভাষা নাই। কিন্তু আপনাদের ঐ সমস্যার জন্য আমরাই দায়ী। বাংলাদেশিদের মধ্যে কিছু দালাল চক্র আছে যাদের অসৎ ব্যবহারে আজ মালয়েশিয়া ইমিগ্রেশন পুলিশ আপনাদের সাথে আমাদের সাথে খারাপ ব্যবহার করে। …. আর মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত বাংলাদেশি হাই কমিশনের যে কি অবস্থা সেটা এই দেশে বসবাসকারি বাংলাদেশিরা জানে।’

এর আগে গত বুধবার (২০ ডিসেম্বর) সরকারি সফরে গিয়ে মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে একইভাবে হেনস্থার শিকার হয়েছেন বাংলাদেশি ১২ সরকারি কর্মকর্তা। তাদের মধ্যে একাধিক যুগ্ম সচিব পদমর্যাদার কর্মকর্তাও ছিলেন বলে সেসময়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে প্রকাশিত হয়।

পরে ওই ঘটনা নিয়ে যুগ্মসচিব (ফুড সেইফটি অথরিটি) মাহবুব কবির মিলন ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিলে মালয়েশিয়ান ইমিগ্রেশন পুলিশের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় ওঠে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

এদিকে এভাবে একের পর এক এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটতে থাকার পরেও শুধুমাত্র ফেসবুকেই কি সমালোচনা সীমাবদ্ধ থাকবে, নাকি এর একটা স্থায়ী সমাধানে কর্তৃপক্ষ কাজ করবে? এমন প্রশ্ন করছেন অনেকেই।

বাংলাদেশ সময়:২১২৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৪, ২০১৭
এসআইজে/জেএম

সকালে রোহিঙ্গা ট্রানজিট পয়েন্ট দেখতে যাবেন প্রিয়াঙ্কা
কুষ্টিয়ায় যুবলীগ নেতাকে আটকের অভিযোগ
হাতে ভাজা মুড়িপল্লীতে ব্যস্ততা
তিন জেলায় ‘বন্দুকযুদ্ধে’ চার মাদক বিক্রেতা নিহত
ঈদে ২০ লাখ যাত্রী পরিবহনে প্রস্তুত ২০৯ লঞ্চ
হুমকির ‍মুখে লাউয়াছড়ার জীববৈচিত্র্য
নলডাঙ্গায় এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার
আলমডাঙ্গায় বন্দুকযুদ্ধে শীর্ষ মাদক বিক্রেতা নিহত
লক্ষ্মীপুর কারাগারে আসামির মৃত্যু
সুরা আছর: সত্য ও ধৈর্যের উপদেশকদের জন্য সুখবর