তারেক মাসুদের পরিবারকে ৪.৬১ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণের আদেশ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চলচ্চিত্র পরিচালক তারেক মাসুদ (ফাইল ফটো)

ঢাকা: সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত চলচ্চিত্র পরিচালক তারেক মাসুদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ হিসাবে ৪ কোটি ৬১ লাখ ৭৫ হাজার ৪৫২ টাকা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

রোববার (৩ ডিসেম্বর) বিচারপতি জিনাত আরা ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের হাইকোর্ট বেঞ্চ তারেক মাসুদের মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের করা ক্ষতিপূরণ মামলার রায়ে এই আদেশ দেন।

তারেক মাসুদের পরিবারের আইনজীবী ব্যারিস্টার সারা হোসেন সাংবাদিকদের এ কথা জানিয়েছেন। গত ২৯ নভেম্বর মামলার রায় পড়া শুরু হয়।

ব্যারিস্টার সারা হোসেন বলেন, দীর্ঘ পাঁচ বছরের লড়াইয়ে আজ সমাপ্তি টানা হলো। মৃত্যুর জন্য ক্ষতিপূরণ দাবি করে তারেক মাসুদের স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ, ছেলে নিষাদ মাসুদ এবং মা নুরুন্নাহার বেগম এ মামলাটি করেছিলেন। আজকে রায় পেয়েছি। 

রায়ে বলা হয়েছে, যারা এ দুর্ঘটনার জন্য দায়ী, মর্মান্তিক মৃত্যুর জন্য দায়ী, তাদের এখন ৪ কোটি ৬১ লাখ ৭৫ হাজার ৪৫২ টাকা দিতে হবে তারেক মাসুদের পরিবারকে। গাড়ির চালক দেবেন ৩০ লাখ, তৃতীয় পক্ষের ক্ষতির জন্য ইন্স্যুরেন্স মালিককে (রিলায়েন্স ইন্সুরেন্স) দিতে হবে ৮০ হাজার টাকা এবং বাদ বাকি টাকা দেবেন বাস মালিকরা। এ টাকা দিতে হবে তিন মাসের মধ্যে।

ব্যারিস্টার সারা বলেন, এ টাকাটা চেয়েছিলাম কয়েকটা খাতে। সেগুলো হলো- তারেক মাসুদ মূল উপার্জনকারী ছিলেন, মৃত্যুর কারণে উপার্জন কমে গেছে। তার স্নেহ এবং ভালোবাসা হারিয়েছে। ক্যাথরিন নিজেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিলেন। তার চোখের ক্ষতি হয়েছে। মাইক্রোবাসটি ড্যামেজ হয়ে গেছে। 

রায় ঘোষণার পর আদালত থেকে বেরিয়ে আসছেন ক্যাথরিন মাসুদ ও তাদের আইনজীবী ব্যারিস্টার সারা হোসেন। ছবি: বাংলানিউজআদালতে তারেক মাসুদের পরিবারের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ড. কামাল হোসেন। চুয়াডাঙ্গা বাস মালিকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী আব্দুস সুবহান তরফদার এবং  রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির পক্ষে ছিলেন ব্যারিস্টার ইমরান এ সিদ্দিকী, ব্যারিস্টার এহসান এ সিদ্দিকী, শিশির মনির ও সৈয়দ মুহাম্মদ বুরহান উদ্দিন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ইসরাত জাহান।

২০১৬ সালের ১৩ মার্চ হাইকোর্টে এ মামলার বিচারিক কার্যক্রম শুরু হয়। সাক্ষ্যে তারেক মাসুদের স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ মোট ৭ কোটি ৭৬ লাখ ২৫ হাজার ৪৫২ টাকা ক্ষতিপূরণের কথা বলেন। 

আদালতে ক্যাথরিন মাসুদের পক্ষে সাতজন, বাস মালিক সমিতির পক্ষে পাঁচজন ও রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির পক্ষে একজন সাক্ষ্য দিয়েছেন।

২০১১ সালের ১৩ আগস্ট মানিকগঞ্জের ঘিওর উপজেলার জোকা এলাকায় ঢাকা-আরিচা মহাসড়কে দুর্ঘটনায় তারেক মাসুদ এবং এটিএন নিউজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মিশুক মুনীরসহ পাঁচজন নিহত হন। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে একটি মামলা করে। 

এরপর ২০১৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি নিহতদের পরিবারের সদস্যরা মানিকগঞ্জে মোটরযান অর্ডিন্যান্সের ১২৮ ধারায় বাস মালিক, চালক ও ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ চেয়ে দু’টি মামলা করেন।

সংবিধানের ১১০ অনুচ্ছেদ অনুসারে এ দু’টি মামলা হাইকোর্টে বদলির নির্দেশনা চেয়ে আবেদন করা হয়।

তারেক মাসুদের স্ত্রী ক্যাথরিন মাসুদ এবং মিশুক মুনীরের স্ত্রী কানিজ এফ কাজী ও ছেলে সুহৃদ মুনীর দু’টি আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০১৩ সালের ৩ অক্টোবর হাইকোর্ট রুল জারি করেন। এ রুলের শুনানি শেষে ২০১৪ সালের ২৯ অক্টোবর দুই আবেদন মঞ্জুর করেন হাইকোর্ট। 

পরে বিচারপতি জিনাত আরার নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে মামলা দু’টি শুনানির জন্য আসে। এর মধ্যে তারেক মাসুদের মামলার শুনানি শেষ হয়। অপরটির শুনানি ৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত মুলতবি রয়েছে।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৩৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৭
ইএস/এইচএ/

মাঝরাতে শীতার্তদের পাশে ইউএনও
‘পদ-পদবী চিরস্থায়ী নয়’
ঠাকুরগাঁওয়ে দুই ইয়াবা ব্যবসায়ী আটক
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা
সোমবার প্রকাশিত হবে বামফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা
ইতিহাসের সাক্ষী ঘুঘুডাঙ্গা জমিদার বাড়ি
ঢাবিতে ভাঙচুরের ঘটনায় মামলা
কবি অ্যালান পো’র জন্ম
ইতিহাসের এই দিনে

কবি অ্যালান পো’র জন্ম

উৎসবের মেজাজে মকর, ইতিবাচক ভাবনায় উদ্বুদ্ধ মেষ
বাস ভাঙচুরকে কেন্দ্র করে বেলকুচিতে সড়ক অবরোধের ডাক




Alexa