মায়া কাটারা নিয়ে পক্ষভুক্তির আবেদন খারিজ

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

হাইকোর্টের লোগো

ঢাকা: রাজধানীর সদরঘাট এলাকায় মায়া কাটারা মার্কেট নিয়ে রিটে পক্ষভুক্ত হতে ‘দখলদারদের’ আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন হাইকোর্ট।

একইসঙ্গে সাইনবোর্ড নামাতে আদালতের আদেশ স্থগিত চেয়েও করা আবেদনও খারিজ করা হয়েছে।

বুধবার (২৯ নভেম্বর) বিচারপতি কাজী রেজা-উল ও বিচারপতি মোহাম্মদ উল্লাহ’র হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।
  
আদালতে আবেদনকারীদের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী এম আই ফারুকী। আদালতে রিটকারীর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট অমিত দাশ গুপ্ত, সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট মুনতাসির মাহমুদ রহমান ও সুভাষ চন্দ্র দাস।

রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল টাইটাস হিল্লোল রেমা ও অবন্তী নুরুল।

এর আগে গত ১৯ নভেম্বর রাজধানীর সদরঘাট এলাকায় মায়া কাটারা মার্কেটে দখলদারদের লাগানো সাইনবোর্ড ১২ ডিসেম্বরের মধ্যে অপসারণের নির্দেশ দিয়েছিলেন হাইকোর্ট। ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার (ডিএমপি) ও ঢাকার সহকারী কমিশনারকে (রাজস্ব) আদালতের এ আদেশ বাস্তবায়ন করে প্রতিবেদন দাখিল করতে হবে।

রুলে মায়া কাটারা মার্কেট ব্যবসায়ীদের রক্ষায় কেন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, মায়া কাটারা মার্কেটের সরকারি সম্পত্তি রক্ষায় প্রশাসনের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

চার সপ্তাহের মধ্যে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, ঢাকা জেলা প্রশাসক, ডিএমপি কমিশনার, ঢাকার সহকারী কমিশনার (রাজস্ব) ও কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এরপর ২৮ নভেম্বর মঙ্গলবার পুরান ঢাকার বাসিন্দা নাফিসা মঈন, শাফাক জেরিন ও আসিফ সুলতান হাইকোর্টে পক্ষভুক্ত হতে আবেদন করেন।

অমিত দাশ গুপ্ত বলেন, তিন জন পক্ষভুক্ত হতে আবেদন করেছেন। যারা নিজেদের মালিক দাবি করে সাইনবোর্ড লাগাতে ডেভেলপার কোম্পানিকে অনুমতি দিয়েছিলেন। হাইকোর্ট আজ সে আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন। একইসঙ্গে ১৯ নভেম্বরের সাইনবোর্ড নামানোর আদেশ স্থগিত চেয়ে করা আবেদনও খারিজ করা হয়েছে।

গত ৭ নভেম্বর একটি জাতীয় দৈনিকে ‘সরকারি মার্কেট দখলে বেসরকারি সাইনবোর্ড’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওই প্রতিবেদন যুক্ত করে আব্দুল আজিজ নামে এক সাংবাদিক হাইকোর্টে রিট করেন।

ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘রাজধানীর সদরঘাট এলাকায় হাজার কোটি টাকা মূল্যের সরকারি সম্পত্তি দখলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে একটি প্রভাবশালী চক্র। ওই সম্পত্তিতে মায়া কাটারা মার্কেট নামে গার্মেন্টস অ্যাক্সেসরিজের একটি পাইকারি মার্কেট রয়েছে। সেখানে দোকানের সংখ্যা প্রায় তিনশ। চক্রের সদস্যরা দোকানিদের জানিয়েছে, মার্কেটের মূল মালিক সাফায়াত গং মার্কেটটি বিক্রি করে দিয়েছেন। স্থানীয় প্রভাবশালী শাজাহান সিরাজ জুয়েলসহ কয়েকজন সেটি কিনেছেন। তারা এখন বহুতল শপিং কমপ্লেক্স তৈরি করবেন। নতুন মার্কেট তৈরি হলে দোকানিরা আকার অনুযায়ী তাদের দোকান বুঝে পাবেন। এরই মধ্যে মার্কেটের উপরে বায়নাসূত্রে মালিকানার বিশাল সাইনবোর্ডও টানিয়ে দেওয়া হয়েছে। এ অবস্থায় দোকানিরা পড়েছেন মহাবিপাকে। বিস্ময়কর ব্যাপার হলো, এ মার্কেটটি আসলে কোনো ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সরকারি সম্পত্তি। সরকারি সম্পত্তিতেই টানানো হয়েছে দখলের সাইনবোর্ড। সাধারণ ব্যবসায়ীরা সেখানে বেশ আতঙ্কে দিনাতিপাত করছেন। এ নিয়ে কোনো কথা বলতে গেলে তাদের গুম-খুনেরও হুমকি দেওয়া হচ্ছে।’
 
**মায়া কাটারা মার্কেটের সাইনবোর্ড অপসারণের নির্দেশ

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩০ ঘণ্টা, নভেম্বর ২৯, ২০১৭
ইএস/এসএইচ

বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে পড়ার পর ফুটবলটাও দেখার ইচ্ছে হয়নি
‘পাণ্ডুলিপি করে আয়োজন’ রঙচটা জীবনের রকমারি আখ্যান
নিউইয়র্কের পথে অমিতাভ-রণবীরের সেলফি
ভারত সফরে গেলেন এরশাদ
কারও শর্ত মেনে নয়, নির্বাচন হবে সংবিধান অনুযায়ী
বিধি অনুযায়ী নির্বাচন হবে: প্রতিমন্ত্রী রাঙ্গা
সেরে উঠছে সেই অজগরটি
আগরতলায় স্বস্তির বৃষ্টি
মাগুরায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২ 
কখন বলেছি ভালোবাসি না? শচীনকে প্রশ্ন জুহির