বিশেষ স্বাস্থ্যসেবায় আইসিডিডিআর,বি কর্মীদের পুরস্কার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

আইসিডিডির,বি’র পুরস্কারপ্রাপ্তরা

ঢাকা: সম্প্রতি রাজধানীতে ডায়রিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব, টিকার মাধ্যমে কলেরা প্রতিরোধ ও রোহিঙ্গাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় নিয়োজিত নিবেদিত কর্মীদের পুরস্কার দিয়েছে আইসিডিডিআর,বি।

 

বৃহস্পতিবার (০২ আগস্ট) আন্তর্জাতিক উদারাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ (আইসিডিডিআর,বি') মহাখালীর প্রধান কার্যালয়ে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়। 

সেপ্টেম্বর ২০১৭-তে মিয়ানমার থেকে বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ার শুরুর দিকে আইসিডিডিআর,বি, বাংলাদেশ সরকার ও অন্য কয়েকটি সংস্থা মিলে কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শিবিরে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের প্রাথমিক স্বাস্থ্যঝুঁকি নিরূপণ করে। এতে দেখা যায়, কলেরার মহামারি থেকে রক্ষা পেতে আগেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। প্রায় দশ লাখ মানুষ অস্থায়ী আশ্রয়ে, নিরাপদ পানি, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা এবং স্বাস্থ্য সংকটে বসবাস করছে। যা সংক্রামক রোগ যেমন- কলেরা বিস্তারের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ।  

সম্প্রতি ঢাকায়ও ডায়রিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়েছিল। এ বছরের মার্চ থেকে মে সময়কালে আইসিডিডিআর,বি-তে ৫৫ হাজার ২২২ জন ডায়রিয়া রোগী ভর্তি হয়। যা ২০০৭ সালের পর গড়ে সর্বোচ্চ সংখ্যক রোগী এবং সাধারণ ধারণক্ষমতার দ্বিগুণেরও বেশি। কিন্তু আইসিডিডিআর,বি ঢাকা হাসপাতালের কর্মীরা এর 'কোনো রোগীকে ফিরিয়ে না দেওয়ার' আদর্শে অবিচল থাকেন। তারা বাড়তি সময় কাজ করেও উচ্চ মানসম্পন্ন চিকিৎসাসেবা বজায় রাখেন।  

অনুষ্ঠানে আইসিডিডিআর,বি’র নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক জন ডি ক্লেমেন্স তার বক্তব্যে বলেন, রোহিঙ্গাদের মানবিক বিপর্যয় এবং ঢাকায় ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় কর্মপালনে আত্মবিশ্বাসী, প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ও কার্যকরী অবদানের জন্য আমাদের ২০ জন কর্মীকে স্বীকৃতি দিতে পেরে আমরা আনন্দিত। 

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. সিরাজুল হক খান আইসিডিডিআর,বি'র উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান। 

তিনি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে টিকা দান কার্যক্রমে জড়িত ও ঢাকায় ডায়রিয়া রোগের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় জড়িত ব্যক্তিদের কাজের প্রশংসা করেন। 

স্বাস্থ্যখাতে বিশেষ অবদানের জন্য আইসিডিডির,বি'র যেসব কর্মীরা পুরস্কৃত হয়েছেন তারা হলেন- রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ক্ষেত্রে ডা. আশরাফুল ইসলাম খান, ডা. মো. শরিফুল ইসলাম, ডা. তাজুল ইসলাম বারী, ফাহিমা চৌধুরী, শাহ আলম সিদ্দিকী, ডা. মো. তৌফিকুল ইসলাম, মো. আসাদুজ্জামান, মোহাম্মদ মাহমুদুর রহমান খান, তাপস পাল, মো. মিজানুর রহমান।

রাজধানীতে ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে অবদান রাখা পুরস্কারপ্রাপ্তরা হলেন- ডা. শোয়েব বিন ইসলাম, ডা. মো. মারজান কবীর, ডা. রুমানা শারমিন, নার্স- জান্নাতুন নাহার, রুশান আলম, মৌসুমী আক্তার, রেবেকা সুলতানা, স্বাস্থ্যকর্মী হালিমা বেগম, রোকেয়া ও মো আবুল কাশেম।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০১ ঘণ্টা, আগস্ট ০২, ৩০১৮
এমএএম/এএ

নদীপথে আসছে গরু, চাঁদাবাজিরোধে নিরাপত্তার দাবি
নওগাঁয় হাজতির মৃত্যু
ছেলের পছন্দ বিবিএ, বাবা-মায়ের ইংরেজি!
নীলফামারীতে ঈদুল আজহার প্রথম জামাত ৮টায়
প্রধানমন্ত্রীর কাছে ১০ মিনিট সময় চেয়েছেন ড. কামাল
নির্দিষ্ট সময়ে ঘাট ছাড়ছে না কোনো লঞ্চ
ফুলবাড়িয়ায় পানিতে ডুবে ২ শিশুর মৃত্যু
তিন মাসের জন্য মাঠের বাইরে ডি ব্রইনা
যানবাহনের চাপ কমেছে পাটুরিয়ায়
ভোমরা হবে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম স্থলবন্দর