ইফরিদ-কুফরিদ জিনের ‘জাদুর লাঠিম’

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

কণ্ঠশীলনের ‘জাদুর লাঠিম’। ছবি: সোহেল সরওয়ার, বাংলানিউজ

চট্টগ্রাম: ইফরিদ-কুফরিদ নামের দুইটি দুষ্টু জিন। মানুষের শিরায় উপশিরায় ঘুরে বেড়ায়। মনে সন্দেহ আর অবিশ্বাসের বিষ ঢুকিয়ে, ধর্মের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে।

এ চক্রান্তের বলী হয় ব্যবসায়ী, কোটিপতি থেকে শুরু করে তরুণী। কুফরিদের চক্রান্তে খুন হন গভর্নর। কালো জাদু থেকে মুক্ত হয়ে তারা আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে।  

ঢাকার কণ্ঠশীলনের ‘জাদুর লাঠিম’ নাটকের গল্প এটি। শুক্রবার (১২ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় থিয়েটার ইনস্টিটিউট চট্টগ্রাম (টিআইসি) মিলনায়তনে এ নাটকের পঞ্চম মঞ্চায়ন হলো।

কণ্ঠশীলনের ‘জাদুর লাঠিম’।  ছবি: সোহেল সরওয়ার, বাংলানিউজ

নোবেলজয়ী মিশরের নাগিব মাহফুজের ‘অ্যারাবিয়ান নাইটস অ্যান্ড ডে’জ’ অবলম্বনে নাটকটির নাট্যরূপ দিয়েছেন রাফিক হারিরি।

মধ্যপ্রাচ্যের পটভূমিতে লেখা এ নাটকে নাট্যকার বর্তমান সময়ের রাজনৈতিক, সামাজিক প্রেক্ষাপট, ব্যক্তিগত দ্বিধাদ্বন্দ্ব ফুটিয়ে তুলেছেন। অদ্ভুতুড়ে কাহিনির সঙ্গে বর্তমান বিশ্বের প্রবহমান ঘটনাবলির সাযুজ্য ফুটিয়ে তুলতে ফ্যান্টাসি ও রিয়েলিস্টিকের মিশ্রণ রয়েছে নাটকে।

নাটকের শুরুতে সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন নাট্যজন আহমেদ ইকবাল হায়দার ও আবৃত্তিশিল্পী রাশেদ হাসান, জাদুর লাঠিমের নির্দেশক ও কণ্ঠশীলনের অধ্যক্ষ মীর বরকত।

আহমেদ ইকবাল হায়দার বলেন, কণ্ঠশীলন বাচিক শিল্প চর্চা করে। পাশাপাশি নাটকও করে। চট্টগ্র্রামে কণ্ঠশীলনের ‘পুতুল খেলা’ নাটকটি দেখেছিলাম। এখনো সেই মুগ্ধতা আছে। ‘জাদুর লাঠিম’র আজ আমরা দেখব পঞ্চম মঞ্চায়ন। এটি তাদের সপ্তম নাটক। নাটকের সঙ্গে আবৃত্তির পার্থক্য হচ্ছে নাটকে টেনশন কাজ করে।

রাশেদ হাসান বলেন, কণ্ঠশীলন যখন মঞ্চে আসে তখন দর্শক-শ্রোতাদের প্রত্যাশা থাকে বেশি। বাংলাদেশে খুব কম সংগঠন আছে যারা আবৃত্তি চর্চার পাশাপাশি নাট্যচর্চাও করছে। এক অঞ্চলের প্রযোজনাগুলো যদি অন্য অঞ্চলে প্রদর্শিত বা মঞ্চায়িত হয় তবে দর্শক উপকৃত হবে। দেশের সমগ্র শিল্পচর্চা সম্পর্কে তারা ধারণা পাবে।

মীর বরকত বাংলানিউজকে জানান, আকাশ সংস্কৃতি, ডিজিটাল ডিভাইসে বিনোদনের নানা উপকরণ ছড়িয়ে পড়ার পরও মঞ্চে ভালো নাটক দর্শক টানছে। চট্টগ্রামে কণ্ঠশীলনের জাদুর লাঠিম দেখতে প্রচুর দর্শক টিকেট কেটে হলে ঢুকেছেন। এ নাটকটি মানুষের চোখের সামনের পর্দা সরিয়ে দেবে। এর কাহিনি যেমন অবাস্তব তেমনি বাস্তবও।   

নাটকে সাবলীল অভিনয় করেছেন রইস উল ইসলাম, মোস্তফা কামাল, একেএম শহীদুল্লাহ কায়সার, সোহেল রানা, সালাম খোকন, অনন্যা গোস্বামী, জেএম মারুফ সিদ্দিকী, নিবিড় রহমান, আফরিন খান, অনুপমা আলম, লায়লা নজরুল, রাহনুমা ইসলাম রাখী, মো. আব্দুল কাইয়ুম, রুবেল মজুমদার, নিশরাত জেবিন নিশি, শেখ সাজ্জাদুর রহমান, ফাহিম আবরার, আনিকা শৌনি ও তাসিন ইসলাম।

দেড় ঘণ্টার এ নাটকে মঞ্চসজ্জা, পোশাক ও আলোক পরিকল্পনায় ছিলেন ফয়েজ জহির। সঙ্গীত পরিকল্পনা ও সুর সংযোজন করেছেন শিশির রহমান। কোরিওগ্রাফি করেছেন আমিনুল আশরাফ। গান লিখেছেন রাফিক হারিরি ও মীর বরকত। প্রযোজনা অধিকর্তা আব্দুর রাজ্জাক।   

বাংলাদেশ সময়: ২১৫৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১২, ২০১৮

এআর/টিসি

মেয়ের গায়ে হলুদে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মায়ের মৃত্যু
গুলিয়াখালীতে তরুণ পর্যটকদের হাতছানি
নাটোরে র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ মাদকবিক্রেতা নিহত
আর নয় নিমতলী ট্র্যাজেডি, হচ্ছে আলাদা কেমিক্যাল পল্লী
ভারতবিরোধী প্রচারণায় পাকিস্তান হাইকমিশন
বরিশালে মাদক মামলায় ১ জনের যাবজ্জীবন
জামালপুরে ধেয়ে আসছে বন্যার পানি, বিপদসীমার ওপরে যমুনা
পাবনায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে নিহত ১
বরিশালে ধারালো অস্ত্রসহ আটক ৩
মৃত ব্যক্তির অঙ্গ সংযোজন বাস্তবায়নের উদ্যোগ