চট্টগ্রাম ওয়াসা

৬ মাসে বকেয়া বেড়েছে ৭ কোটি

মিজানুর রহমান, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

লোগো

চট্টগ্রাম: গ্রাহকের কাছে বকেয়া বিলের পরিমাণ ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে চট্টগ্রাম ওয়াসার। গেল ডিসেম্বরে সেবা সংস্থাটির বকেয়া বিলের পরিমাণ ৬৬ কোটি টাকা থাকলেও চলতি বছরের মে মাসে তা দাড়িয়েছে ৭৩ কোটি টাকায়। সে হিসেবে শেষ ৬ মাসেই ওয়াসার বকেয়া বিলের পরিমাণ বেড়েছে প্রায় ৭ কোটি টাকা।

সংশ্লিষ্টরা বকেয়া বিল আদায়ে ওয়াসাকে আরও ‘কঠোর’ হওয়ার তাগিদ দিলেও ওয়াসা কর্তৃপক্ষ বলছে, বিল পরিশোধে গ্রাহকের আন্তরিকতার অভাবেই বাড়ছে বকেয়া বিলের পরিমাণ। নিজেদের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সংকট থাকায় বিল বকেয়া রাখা গ্রাহকদের বিরুদ্ধে ‘অ্যাকশন’ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলেও দাবি সেবা সংস্থাটির।

চট্টগ্রাম ওয়াসার শেষ ছয় মাসের বকেয়া বিলের পরিমাণ পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, গেল ডিসেম্বরে গ্রাহকের কাছে ওয়াসার বকেয়া ছিলো-৬৬ কোটি ১৪ লাখ ৫০ হাজার ৩৭১ টাকা। এর মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ১৬ কোটি ৬৩ লাখ ২২ হাজার ৭৯০ টাকা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে বকেয়া ছিলো ৪৯ কোটি ৫১ লাখ ২৭ হাজার ৫৮১ টাকা।

১ কোটি টাকারও বেশি বকেয়া বেড়ে জানুয়ারিতে গ্রাহকের কাছে ওয়াসার বকেয়া বিলের পরিমাণ দাড়ায় ৬৭ কোটি ২৬ লাখ ৪৭ হাজার ৫১৬ টাকায়। এর মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ১৭ কোটি ৫৫ লাখ ৪০ হাজার ৯০৯ টাকা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে বকেয়া ছিলো ৪৯ কোটি ৭১ লাখ ৬ হাজার ৬০৭ টাকা।

ফেব্রুয়ারিতে গ্রাহকের কাছে ওয়াসার বকেয়া বাড়ে ২ কোটি টাকারও বেশি। ফলে মোট বকেয়ার পরিমাণ দাড়ায় ৬৯ কোটি ২৮ লাখ ৬০ হাজার ৯১৫ টাকায়। এর মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠানের ১৮ কোটি ৫৫ লাখ ১০ হাজার ৯১৯ টাকা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ৫০ কোটি ৭৩ লাখ ৪৯ হাজার ৯৯৬ টাকা।

মার্চে গ্রাহকের কাছে ওয়াসার বকেয়া বিলের পরিমাণ দাড়ায় ৭০ কোটি ৭৫ লাখ ৯২ হাজার ৩৯৪ টাকা। এর মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠানের ১৮ কোটি ৭৮ লাখ ৮২ হাজার ১৮৩ টাকা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ৫১ কোটি ৯৭ লাখ ১০ হাজার ২১১ টাকা।

প্রায় আড়াই কোটি টাকা বেড়ে এপ্রিলে গ্রাহকের কাছে ওয়াসার বকেয়া দাড়ায় ৭৩ কোটি ১০ লাখ ৫৬ হাজার ৪৭৯ টাকা। এর মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ১৯ কোটি ৭২ লাখ ১৫ হাজার ৩৯৭ টাকা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়াসার বকেয়া ৫৩ কোটি ৩৮ লাখ ৪১ হাজার ৮২ টাকা।

ওয়াসার কাছে থাকা সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী মে মাসে সেবা সংস্থাটির বকেয়া বিলের পরিমাণ ৭৩ কোটি ৩০ লাখ ২৮ হাজার ৯৪৯ টাকা। যার মধ্যে সরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ১৯ কোটি ৮২ লাখ ৫১ হাজার ৫৩০ টাকা এবং বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়াসার পাওনা ৫৩ কোটি ৪৭ লাখ ৭৭ হাজার ৪১৯ টাকা।

এ বিষয়ে চট্টগ্রাম ওয়সার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী একেএম ফজলুল্লাহ বাংলানিউজকে বলেন, বকেয়া বিল আদায়ে ওয়াসা সব ধরনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। বিল পরিশোধ প্রক্রিয়া আরও সহজ করতে ব্যাংক কিংবা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমেও বিল নেওয়া হচ্ছে। এরপরেও যারা বিল পরিশোধ করছেন না, তাদের আমরা নোটিশ প্রদান করছি। পরিশোধ না করলে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সংকট থাকা্য় সংযোগ বিচ্ছিন্নের অভিযান নিয়মিত পরিচালনা করা যায়নি। নতুন একজন এসেছেন। তার নেতৃত্বে শিগগিরই সংযোগ বিচ্ছিন্নের অভিযান শুরু হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২০৪৮ ঘণ্টা, জুলাই ০৯, ২০১৮

এমআর/টিসি

সাভারের পরিণতি কি হাজারিবাগের মতো!
ক্ষমা চেয়ে গ্রাহকের সুদ কমালো উত্তরা ব্যাংক
কোটা ইস্যুতে ক্লাস বর্জন, সেশনজটের আশঙ্কা ঢাবিতে
নির্বাচন নিয়ে বিদেশিদের মন্তব্যে গুরুত্ব দেবে না আ’লীগ
কোন্দলে জর্জরিত মহিলা দল
২০-২১ জুলাই খাগড়াছড়িতে সাংস্কৃতিক উৎসব
যেসব স্থান ভ্রমণ না করলে জীবনটাই বৃথা! (পর্ব-৩)
রাজশাহীতে ফুটপাত ছাড়া আর একটি রাস্তাও নির্মাণ হবে না
অবসাদ দূর করবে চকোলেট মিল্ক
বগুড়ায় ভুল চিকিৎসায় স্কুলছাত্রের মৃত্যুর অভিযোগ