স্বেচ্ছাশ্রমে ফুটপাত সাজানোর পরিকল্পনা স্থপতির

আল রাহমান, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

হকাররা ফুটপাত ছেড়ে দেওয়ার পর জানা গেল মিউনিসিপ্যাল স্কুলের সীমানাপ্রাচীর নেই।

চট্টগ্রাম: ফুটপাত ছেড়ে দিয়েছেন হকাররা। শৃঙ্খলার মধ্যে ত্রিপল বিছিয়ে পণসামগ্রী বিক্রি করছেন নির্দিষ্ট সময়ে। কিন্তু দীর্ঘদিন বেদখলে থাকা পথচারীদের ফুটপাত এককথায় বেহাল। কোথাও নালার ওপর স্ল্যাব নেই। কোথাও ওঁত পেতে আছে বিপদ।

সেই ফুটপাত নিরাপদ, নির্বিঘ্ন করার জন্য স্বেচ্ছাশ্রমে পরিকল্পনা করছেন স্থপতি আশিক ইমরান। বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) ভরদুপুরে রাইফেল ক্লাব থেকে কোতোয়ালি মোড় হয়ে স্টেশন রোড চষে বেড়িয়েছেন তিনি।

বাংলানিউজকে তিনি বলেন, নিখুঁত পরিকল্পনার জন্য সরেজমিন দেখতে এসেছি। সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে চসিককে স্বেচ্ছাশ্রমে সহযোগিতা করতে এসেছি। চসিক চায় ফুটপাতের একাংশ নির্ধারিত সময়ে হকারদের ছেড়ে দেবে। ওই সময় বাকি অংশে পথচারী চলাচল করবে। তাই বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

স্থপতি আশিক ইমরান (বামে), ডিজিটাল সার্ভে করছে চসিক

কীভাবে কাজ করবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, এককথায় পথচারীদের নিরাপদ ও নির্বিঘ্নে চলাচলের ব্যবস্থা রাখতে হবে। হাঁটার সময় পা পিছলে যাতে না পড়ে সেই রকম টাইলস থাকবে। সবুজ করিডোর থাকবে। জায়গা যেখানে বেশি পাওয়া যাবে সেখানে পথচারীদের বসার ব্যবস্থা থাকবে। রাতে চলাচলের সুবিধার্থে আলোর ব্যবস্থা করা হবে। নিরাপদ ও নিয়ন্ত্রিত রাস্তা পারাপারের ব্যবস্থা করা হবে ফুটওভার ব্রিজের আধুনিকায়ন ও জেব্রা ক্রসিংয়ের ব্যবস্থা করা হবে। বাস বে করা হবে। নালাগুলোর আবর্জনা, মাটি অপসারণ করে পুনর্নিমাণ করা হবে। ধাপে ধাপে কাজগুলো হবে।

এক প্রশ্নের উত্তরে আশিক ইমরান বলেন, প্রথমে নিউমার্কেট ও আশপাশের এলাকা এবং প্রবর্তক মোড়ের ফুটপাতগুলো দৃষ্টিনন্দন করা হবে। এরপর পর্যায়ক্রমে নগরীর সব ফুটপাতের হকারদের শৃঙ্খলার মধ্যে এনে বিউটিফিকেশনের কাজটা করা হবে।

চসিকের একজন কর্মকর্তা বাংলানিউজকে বলেন, ঈদুল আজহার পর নিউমার্কেট এলাকার হকারদের মধ্যে অনেকেই স্বেচ্ছায় দখল ছেড়ে দিয়েছেন। যারা দখল ছাড়েননি তাদের চসিকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অভিযান চালিয়ে উচ্ছেদ করেছেন। এরপর শুরু হয় ডিজিটাল সার্ভে। শিগগির এ সার্ভে রিপোর্ট পাওয়া যাবে। এখন চলছে পরিকল্পনার কাজ। স্থপতি আশিক ইমরান স্বেচ্ছাশ্রমে নিউমার্কেট ও প্রবর্তক মোড়ের আশপাশের ফুটপাতগুলো আধুনিকায়নের জন্য পরিকল্পনার কাজটি করছেন।

বিলবোর্ড উচ্ছেদের পর ফুটপাতের হকারদের শৃঙ্খলায় আনার কাজটিকে বড় করে দেখছেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। তিনি বলেন, হকারদের শৃঙ্খলায় আনার লক্ষ্যে দুই বছরের বেশি সময় নিয়েছি আমি। এ সময় দফায় দফায় হকারদের সঙ্গে সভা করেছি। কাউন্সেলিং করছি। জোর জবরদস্তি করে এ বিষয়ে আমার পক্ষে রেজাল্ট আনার বিপক্ষে ছিলাম। আমার কনফিডেন্স ছিল।

মেয়র বলেন, মিউনিসিপাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের যে বাউন্ডারি নেই সেটি আমি জানতাম না। হকারদের উচ্ছেদের পর জেনেছি। ড্রেনগুলো ডেথ। ড্রেনগুলো পানি নিষ্কাশনের জন্য স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনা হবে। নিউমার্কেটের গোলচত্বরটি বিউটিফিকেশনের আওতায় আনা হবে। হকাররা বিকেল পাঁচটা থেকে রাত ১০টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত বসবেন। বৃহস্পতিবার বেলা দুইটা থেকে এবং শুক্রবার সকাল ১০টা থেকে বসবেন। আমরা হকারদের পরিচয়পত্র দেব। সবাইকে একই রঙের ছাতা দেব।            

বাংলাদেশ সময়: ২১৫২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭

এআর/টিসি

                                             

 


এক্সেলসিয়র সিলেট দেখে মুগ্ধ ইকবাল সোবহান চৌধুরী
হাতিয়ায় আ’লীগ নেতাসহ ১৮৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা
মুগাবের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে প্ররোচিত করছে সেনাবাহিনী
লালমনিরহাটে ইয়াবাসহ মাদক বিক্রেতা আটক
গভীর রাতেও চলছে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাজ

Alexa