বিধানসভা-লোকসভা নির্বাচন একসঙ্গে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

নির্বাচন কমিশনের লোগো

কলকাতা: ভারতে ভোট প্রধানত দুই ধরনের হয়। লোকসভা নির্বাচন ও বিধানসভা নির্বাচন। লোকসভা নির্বাচনে দেশ কে চালাবে অর্থাৎ প্রধানমন্ত্রী কে হবেন। পাঁচবছর পর পর এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। 

বিধানসভা নির্বাচন, রাজ্য কে চালাবে অর্থাৎ মুখ্যমন্ত্রী কে হবেন। এটাও হয় প্রতি পাঁচবছর পর পর। ২০১৪ সালে নরেন্দ্র মোদি প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর থেকেই লোকসভা ও বিধানসভার ভোট একসঙ্গে আয়োজনের পক্ষে মত দিয়ে আসছেন। এতোদিন তার পরিকাঠামো ছিলো না।
 
কিন্তু লোকসভা ও বিধানসভা নির্বাচন একসঙ্গে করার জন্য যে পরিকাঠামো দরকার তা আগামী বছর সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যেই নির্বাচন কমিশন সম্পন্ন করতে পারবে। সুতরাং ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসের পর লোকসভা ও বিধানসভা ভোট একসঙ্গে আয়োজন করতে কমিশনের কোনো সমস্যা নেই। 
 
এখন শুধু কেন্দ্রীয় সরকার এবং দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোকেই এই বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হবে। মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওপি রাওয়াত বলেছেন, ‘আমাদের পক্ষ থেকে এটা বলা যায় যে, পরিকাঠামো ও প্রযুক্তিগতভাবে অন্তত কোনো সমস্যা নেই আগামী বছরের সেপ্টেম্বর মাসের পর ভোট হলে।’
 
কিন্তু একই সঙ্গে লোকসভা ও রাজ্যের বিধানসভা ভোট হবে কি না, তা স্থির করার অধিকার রয়েছে কেন্দ্রের হাতে। রাজ্যগুলোর সঙ্গে কথা বলে এবং রাজনৈতিক দলগুলোর সর্বসম্মত মতৈক্যের পরই এরকম চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে যাওয়া সম্ভব।
  
প্রধানমন্ত্রী এই লক্ষ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে কথাও বলেছেন। এর আগে রাজনৈতিক দলগুলোকেও পৃথকভাবে এবং সর্বদলীয় বৈঠকে ডেকে নির্বাচন কমিশন মতামত নিয়েছে। সেইসব বৈঠকে মিশ্র প্রতিক্রিয়া পাওয়া গিয়েছে। তবে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া সম্ভব হয়নি।
 
নির্বাচন কমিশনার বলেছেন, এটা ঠিক যে গোটা দেশে একইসঙ্গে লোকসভা ও যাবতীয় রাজ্যের বিধানসভা ভোট সম্পন্ন করতে হলে বিপুল সংখ্যক ভোটযন্ত্রের প্রয়োজন। সেটা আমরা কেন্দ্রীয় সরকারকে একটি সম্ভাব্য সংখ্যা ও খরচের হিসাব আগেই দিয়েছি। সেইমতোই অর্থ বরাদ্দও হয়েছে।
 
এই মুহূর্তে এই বিষয়টি নিয়ে নতুন করে যখন আলোচনা শুরু হচ্ছে, তখন আর কিছুদিন পরই গুজরাট ও হিমাচল প্রদেশের ভোট। এরপর ভোট হবে আগামী বছর অনেক রাজ্যে। কর্ণাটক, রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, ছত্তিশগড়, ত্রিপুরা, নাগাল্যান্ড, মেঘালয়, মিজোরাম।
 
এর পরপরই ২০১৯ সালে লোকসভা ভোটগ্রহণ। সুতরাং আগামী দেড় বছরের মধ্যে দেশের অনেকগুলো নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। মুলত পৃথক ভাবে দুই ভোট করতে খরচও হয় অনেক। সেক্ষেত্রে একসঙ্গে ভোট হলে দেশের কোষাগারে চাপও কম পড়বে।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৫৫৮ ঘণ্টা, অক্টোবর ০৬, ২০১৭
বিএস 
 

সম্প্রীতির মেলবন্ধন ‘বসনবুড়ির মেলা’
বিশ্বকাপ শিরোপায় চোখ যুবা কোচ নাভিদের তবে...
বাংলাদেশ জনসংযোগ সমিতির ৩৯তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন
৭ কার্যদিবস পর ডিএসইতে লেনদেন ছাড়ালো হাজার কোটি
কুষ্টিয়ায় আদালত ভবনে অবরুদ্ধ মাহমুদুর রহমান
তরুণীকে ছুরি মেরে পালালো তরুণ
গৌরীপুরে নিখোঁজের ২ দিন পর গৃহবধূর মরদেহ উদ্ধার
হাজীগঞ্জে পানিতে ডুবে ভাই-বোনের মৃত্যু
ঈদে চাঁদাবাজি রোধে পশুবাহী ট্রাকে নজরদারি থাকবে 
শেষ পর্যন্ত মাঠে থেকে রেজাল্ট নিয়ে ঘরে ফিরবো: সরওয়ার