পশ্চিমবঙ্গ সরকারের লক্ষ্য বিশ্ববাজারে মধু রফতানি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মৌমাছি চাষ

 

কলকাতা: লক্ষ্য বিশ্ববাজারে মধু রফতানি করে বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জন। সেদিকেই পা বাড়াচ্ছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। মধু উৎপাদনের সঙ্গে যুক্ত বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, রাজ্যের আর্থিক উন্নয়ন ও অন্যতম উপার্জনের দিক হবে এই মধু। আর সেই সম্ভাবনাকে বাস্তবায়িত করবে রাজ্য সরকার৷ ১৯ আগস্ট ছিলো বিশ্ব মৌমাছি দিবস৷ সেদিন একযোগে কাজ করার আশ্বাস দিয়েছেন রাজ্যের পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় এবং খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ দফতরের মন্ত্রী রেজ্জাক মোল্লা৷

পশ্চিমবঙ্গে নভেম্বর-ডিসেম্বর মাসে ইউক্যালিপটাস গাছ থেকে মধু সংগ্রহ করতে মৌমাছি পালকরা চলে যান মেদিনীপুর, বাঁকুড়া ও পুরুলিয়া জেলায়। 
 
আবার ডিসেম্বরে যখন সরষের ফুল ফোটে তখন তারা পাড়ি দেন নদিয়া, উত্তর ২৪ পরগণা ও মুর্শিদাবাদের মতো জেলাগুলোয়৷ ফেব্রুয়ারি-মার্চ মাসে লিচুর মরসুমে বাক্স নিয়ে তারা পাড়ি দেন মালদহ, মুর্শিদাবাদ ও দক্ষিণ ২৪ পরগণার জেলাগুলোতে।

বর্ষার সময়টা তারা সময় কাটান নিজেদের বাড়িতে৷ সে সময় কমতে শুরু করে মৌমাছির সংখ্যা৷ তখন চিনির রস খাইয়ে বাঁচিয়ে রাখতে হয় মৌমাছিগুলোকে৷ প্রায় যাযাবর জীবন কাটাতে হয় মৌমাছি পালকদের৷ বিশেষত উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগণা, মালদহ ও মুর্শিদাবাদ জেলাতেই মৌমাছি পালকদের সংখ্যা বেশি।

দীর্ঘদিন ধরেই মৌমাছি নিয়ে কাজ করছেন দীপক দাঁ৷ বনগাঁ লাইনে গোবরডাঙা এলাকায় জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণের কাজও চলছে তারই উদ্যোগে৷ দীপক জানান, অন্য অনেক কিছুর মতোই বিশ্বে মধুর বাজার ৫০ থেকে ৬০ শতাংশই চিনের দখলে৷ অথচ পশুর, বাইন,খোলসে গাছ থেকে যে উৎকৃষ্ট মানের মধু মেলে। ঠিকমতো প্রচার করা গেলে তা দার্জিলিং চায়ের মতো জনপ্রিয় হতে পারে৷ উপযুক্ত প্রচারের অভাবে এখনও সে সম্পর্কে ততটা জানে না অনেকেই। যদিও গত কয়েক বছর ধরে আমেরিকা, জার্মানিসহ বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশে রফতানি হচ্ছে পশ্চিমবঙ্গের মধু৷

পশ্চিমবঙ্গে বর্তমানে প্রায় ২ লাখ বাক্সে ভ্রাম্যমাণ মৌমাছি পালনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন ১৫ থেকে ২০ হাজার মানুষ৷ এক একজন মৌপালকের সঙ্গে যুক্ত থাকেন গড়ে চারজন৷ সেই হিসাবে শুধু এ রাজ্যে মৌমাছি পালনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন লাখখানেক মানুষ৷

ইউক্যালিপটাস, সরষে, লিচু, ধনে, তিল ছাড়াও সুন্দরবনের গরান, কেওড়া, পশুর, খোলসে ও বাইন গাছ থেকে মেলে ভালো মধু৷ নারকেল গাছের ফুল থেকেও মধু সংগ্রহ করে মৌমাছিরা৷ সেই মধুর স্বাদও ভালো।

বাংলার আবহাওয়া এবং এ ধরনের গাছ যথেষ্ট পরিমাণে থাকায় মৌমাছি পালন এবং মধু উৎপাদনের ভালো সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷ 

আর সেই রূপরেখাকে বাস্তবায়িত করতে রাজ্যের পঞ্চায়েত এবং খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ দফতর একযোগে কাজ করবে-এমনটাই জানান মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায় ও রেজ্জাক মোল্লা৷

বাংলাদেশ সময়: ১৭২৬ ঘণ্টা, ২৬ আগস্ট, ২০১৭
ভিএস/আরআর

ত্রিপুরা সরকারকে হেয় করতেই আটা নিয়ে বিভ্রান্তি
সিঙ্গাপুরের ডায়েরি | সরদার জার্জিস আলম
মান্দায় বাসের ধাক্কায় নিহত ২
তুরস্কে দুই বছর পর জরুরি অবস্থা প্রত্যাহার
র‌্যাম্পে হাঁটতে হাঁটতে সন্তানকে স্তন্যপান করালেন মডেল
ক্লান্তি হঠাতে মিন্ট!
বলেশ্বর থেকে বাগদা পোনাসহ আটক ৪ জেলের জরিমানা
এইচএসসিতেও কমলো পাসের হার ও জিপিএ-৫
জুভেন্টাসে জুটি হয়ে খেলবেন রোনালদো-পগবা!
ইভিএম সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিপন্থি: রিজভী