ঈদের আগে দুই দেশের বন্যায় কপাল পুড়ছে ব্যবসায়ীদের

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

হিলিতে আটকে আছে পণ্যবাহী ট্রাক। ছবি: বাংলানিউজ

কলকাতা: এবারের বন্যা পরিস্থিতির প্রভাব পড়ল দক্ষিণ দিনাজপুরের হিলির আন্তর্জাতিক স্থল বাণিজ্য বন্দরেও। হিলি বর্ডার তথা বালুরঘাট ৫১২ নম্বর জাতীয় সড়কে এখনও ভারী যানবাহন চলাচল শুরু না হওয়ায়, এবং পাশাপাশি বাংলাদেশেও বন্যা পরিস্থিতি প্রবল আকার নেওয়ায়, ভারতের অংশে লরিগুলো পণ্য নিয়ে দিনের পর দিন আটকে রয়েছে। ফলে লরিগুলোতে থাকা পচনশীল পণ্য পচতে শুরু করেছে। এর জেরে দুই দেশের ব্যবসায়ীদের ক্ষতি হচ্ছে কোটি কোটি টাকা।

হিলি-গাজোল ৫১২ নম্বর জাতীয় সড়কে কয়েক হাজার লরি একদিকে যেমন পণ্য নিয়ে আটকে আছে, তেমনি যান চলাচল শুরু না হওয়ায় খালি লরিগুলোও ফিরে যেতে পারছে না। ফলে সংশ্লিষ্ট লরিগুলোর চালক ও খালাসিরা দুর্দশার মধ্যে পড়েছেন।  হিলি আন্তর্জাতিক স্থলবন্দর খোলা থাকলেও উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাণিজ্য তেমন হচ্ছে না।  মাঝেমধ্যে দুএকটি লরি অতি কষ্টে পণ্য নিয়ে যাতায়াত করছে।
 
হিলি এক্সপোর্ট অ্যান্ড কাস্টমস ক্লিয়ারিং এজেন্ট অ্যাসোসিয়েশন সভাপতি অশোক আগরওয়াল বলেন, ‘জাতীয় সড়কে এখনও একাধিক সেতু দিয়ে ভারী যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। এ কারণে ভিনরাজ্য থেকে আসা পণ্যবাহী লরিগুলো বিভিন্ন জায়গায় আটকে রয়েছে।  অন্যদিকে খালি ট্রাকগুলো কিছু কিছু ছাড়া হচ্ছে। বাংলাদেশের একাধিক জেলা এখনও পানিমগ্ন রয়েছে। আমরা জানতে পেরেছি বাংলাদেশেও একাধিক ব্রিজ ও রাস্তা বন্যার জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় যোগাযোগ ব্যবস্থা স্বাভাবিক হয়নি।  ফলে স্থল বাণিজ্য চালু থাকলেও পণ্য আদান প্রদান হচ্ছে না। খুব জরুরি কিছু পণ্য আদান-প্রদান হচ্ছে।  ফলে খুবই কম সংখ্যক পণ্যবাহী লরি যাতায়াত করছে।  
 
এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশন সূত্রে জানা গেছে, হিলি আন্তর্জাতিক স্থলবন্দর দিয়ে দিনে ৩ শ’র উপর পণ্যবাহী লরি যাতায়াত করে।  বন্যা পরিস্থিতির জেরে ১৩ আগস্ট থেকে হিলি-গাজোল ৫১২ নম্বর জাতীয় সড়কের একাধিক স্থান পানির নিচে চলে যায়। সেইসঙ্গে গঙ্গারামপুরের মহারাজপুরে সেতুর অবস্থা বেহাল হয়ে যাওয়ায় ভারী যান চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ফলে পশ্চিবঙ্গ ছাড়াও ভিনরাজ্য থেকে আসা কয়েক হাজার পণ্যবাহী লরি আটকে পড়ে আছে।
 
অন্যদিকে বাংলাদেশের হিলির পানামা বন্দরসহ আশপাশের এলাকা বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়ে আছে। একাধিক এলাকায় ব্রিজ ও রাস্তা ভেঙে গিয়ে অভ্যন্তরীণ যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেছে। এই পরিস্থিতিতে বাণিজ্য সরকারিভাবে বন্ধ করে দেওয়া না হলেও কার্যত বন্ধই বলা যায়।  লরিগুলো দিনের পর দিন আটকে থাকায় পিয়াজ, ফলমূলসহ একাধিক কাঁচামাল পচতে শুরু করেছে।
 
হিলি আন্তর্জাতিক বাণিজ্য কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, প্রতিদিন অন্তত ১৫ থেকে ২০ কোটি রুপির পণ্য বাংলাদেশে পাঠানো হয়। ফলে ঈদের মৌসুমে প্রাকৃতিক দুর্বেযাগের কারণে ব্যবসায়ীদের কপাল পুড়ছে।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৪৪০ ঘণ্টা, আগস্ট ২৪, ২০১৭
ভিএস/জেডএম

সুপারির খোসায় ২৪ হাজার ইয়াবা, আটক ৩
দেশে কোটা সংস্কার নিয়ে রাজনীতি চলছে
জেনেভা ক্যাম্পে ফের অভিযান, আটক শতাধিক
জঙ্গি সম্পৃক্ততায় মালয়েশিয়ায় গ্রেফতার ৭
যে কারণে আম্পায়ার থেকে বল নিয়েছিলেন ধোনি
গ্রীষ্মের ছুটি কাটাতে লন্ডনে অভিষেক-ঐশ্বরিয়া-আরাধ্য
কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ায় এবার প্রশ্নফাঁস হয়নি
পরিবেশ পদক পেল ওয়ালটন হাই-টেক
এইচএসসিতে পাসের হারে এবারও এগিয়ে মেয়েরা 
হুমায়ূন আহমেদের লেখা ১০ গান (ভিডিও)